রবিবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৭

নড়াইলে ছাত্রলীগের ক্ষুদ্ধ নেতা-কর্মীদের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা!

জুলাই ২৯, ২০১৭ 137 views 0
নড়াইলে ছাত্রলীগের ক্ষুদ্ধ নেতা-কর্মীদের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা!

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা  প্রতিনিধি : নড়াইলে উপজেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন উপলক্ষে অনুষ্ঠিত কর্মীসভা বর্জন করে রহস্যজনক কারণে কেন্দ্রিয় নেতৃবৃন্দদের সঙ্গে নিয়ে সমর্থিত একটি গ্রুপের বিরুদ্ধে গোপন সভা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

 

সোমবার (২৪ জুলাই) সকাল ১০টায় নড়াইলের কালিয়া পৌর কমিউনিটি সেন্টারে কর্মীসভা আহবান করা হয়। ওই সভায় বৈরি আবহাওয়া উপেক্ষা করে যথাসময়ে উপজেলার সকল ইউনিয়ন ও পৌরসভার নেতা-কর্মীরা মিছিল সহকারে উপস্থিত হলেও আমন্ত্রিত কেন্দ্রীয় নেতারা আসেননি। দলীয় গ্রুপিংয়ের কারণে স্থানীয় সর্বস্তরের ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের ব্যাপক উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেলেও সভাস্থল ছিল আমন্ত্রিত নেতাশূন্য।

 

তবে বিকাল তিনটায় গোপনে ব্যক্তিগত কার্যালয়ে নেতা-কর্মীদের সঙ্গে গোপনসভা করেন। এ খবর শুনে তাৎক্ষণিক ভাবে ছাত্রলীগের ক্ষুদ্ধ নেতা-কর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা করেন।

 

দলীয় সূত্রে জানা যায়, নড়াইলের কালিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের একটি গ্রুপ জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন খান নিলু ও সহ-সভাপতি মোঃ শাহীদুল ইসলাম শাহী সমর্থিত। অপর একটি গ্রুপ। আবার নিলু-শাহী গ্রুপটি জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুজ্জামান মুকুল সমর্থিত ও এমপি মুক্তির গ্রুপটি তোফায়েল মাহমুদ তুফান সমর্থিত।

 

আগামী ৩১ জুলাই নড়াইলের কালিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সম্ভাব্য সম্মেলন হওয়ার কথা। এ সম্মেলন উপলক্ষে সোমবার কর্মীসভা আহবান করা হয়। এ সভায় ছাত্রলীগের কেন্দ্রিয় কমিটির সহ-সম্পাদক মনোয়ার হোসেন খোকন ও পাঠাগার বিষয়ক সম্পাদক ইলিয়াছ উদ্দিন সানিসহ জেলা ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দদেরকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। নির্ধারিত দিনে ও সময়ে উপজেলার ছাত্রলীগের সর্বস্তরের নেতা কর্মীরা মিছিল সহকারে উপস্থিত হলেও কেন্দ্রিয় নেতারা আসেননি।

 

সরব উপস্থিত স্থানীয় নেতাকর্মীরা আমন্ত্রিত নেতাদের সঙ্গে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। এরপর বিকাল ৩ টায় খবর পান জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তোফায়েল মাহমুদ তুফান কেন্দ্রিয় নেতৃবৃন্দদেরকে সঙ্গে নিয়ে নড়াইলের কালিয়া পৌর শহরে কার্যালয়ে কর্মী শূন্য গোপন সভা করছেন। এ খবর পেয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের ক্ষুদ্ধ নেতা-কর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা করেন।

 

এ প্রসঙ্গে নড়াইল জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুজ্জামান মুকুল বলেন, নড়াইলের ‘কালিয়ায় উপজেলা ছাত্রলীগের অনুষ্ঠিত কর্মীসভায় আমি ব্যক্তিগত কারণে উপস্থিত হতে পারিনি। তবে এমপির কার্যালয়ে কেন্দ্রিয় নেতৃবৃন্দের গোপনসভা সম্পর্কে আমি অবগত নই।’

 

জেলা ছাত্রলীগের সদস্য মোঃ তাওরাত বিশ্বাস ও উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা মোতাসিন বিল্লাহ্ জানান, ‘আগামী সম্মেলনে গণতান্ত্রিক উপায়ে ছাত্রলীগের কমিটি গঠনের বিপরীতে পকেট কমিটি গঠনের ষড়যন্ত্রে এমপি মুক্তি ও তাঁর সমর্থিত গ্রুপটি চক্রান্ত করছেন। এরই অংশ হিসেবে ছাত্রলীগের কর্মীসভায় কেন্দ্রিয় নেতৃবৃন্দদের আসতে না দিয়ে গোপনে সভা করা রাজনৈতিক শিষ্ঠাচার বহির্ভূত।’

 

এ প্রসঙ্গে  ছাত্রলীগের কেন্দ্রিয় কমিটির সহ-সম্পাদক মনোয়ার হোসেন খোকন বলেন, ‘আমরা স্থানীয় রাজনৈতিক গ্রুপিং ও সভাস্থল সম্পর্কে অবগত নই। নড়াইল জেলা ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ আমাদের এমপি মহোদয়ের কার্যালয়ে নিয়ে এসেছেন।’

 

এ ব্যাপারে জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন খান নিলু বলেন, নড়াইলের ‘কালিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সরব কর্মীসভায় উপস্থিত না হয়ে, এমপি মুক্তির ব্যক্তিগত কার্যালয়ে গোপন সভা করা কোমলমতি ছাত্রলীগের নেতা-কমীদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করা মোটেও কাম্য নয়। এটা এমপি’র। আমি ছাত্রলীগের কেন্দ্রিয় কমিটির নেতৃবৃন্দদের সঙ্গে বিষটি নিয়ে আলোচনা করব।’

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জনমত জরিপ

অং সাং সু চির নোভেল পুরুষ্কার প্রত্যাহার করার জন্য আপনারা কি একমত ?

View Results

Loading ... Loading ...
ব্রেকিং নিউজ