রবিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

বিমা কোম্পানিগুলোতে ৬৪২ কোটি ৬৫ লাখ টাকার বিমা দাবি ঝুলে আছে

জুন ১৫, ২০১৫ 25 views 0
বিমা কোম্পানিগুলোতে ৬৪২ কোটি ৬৫ লাখ টাকার বিমা দাবি ঝুলে আছে

প্রথম নিউজ প্রতিবেদক দুর্ঘটনার কারণে ক্ষতিগস্ত গ্রাহকের বিমাকৃত সম্পত্তির ক্ষতিপূরণ প্রদানে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ৩৫টি নন-লাইফ বিমা কোম্পানি আইনি জটিলতার দোহাই দিয়ে গড়িমসি করছে।

আর এই গড়িমসির কারণে ২০১৪ অর্থবছর শেষে তালিকাভুক্ত নন-লাইফ বিমা কোম্পানিগুলোতে ৬৪২ কোটি ৬৫ লাখ টাকার বিমা দাবি ঝুলে আছে।

যদিও কোম্পানিগুলো বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) কাছে জমা দেয়া বার্ষিক আর্থিক প্রতিবেদনে ৪ হাজার ৯৫৭টি বিমা দাবির পরিপ্রেক্ষিতে সৃষ্ট ৬৪২ কোটি টাকার দাবি অনিষ্পত্তি অবস্থায় রয়েছে বলে উল্লেখ করেছে।

এর আগের বছর অর্থাৎ ২০১৩ হিসাব বছরে অনিষ্পত্তিকৃত ৫ হাজার ৬৫টি দাবির পরিমাণ ছিল ৫৮৯ কোটি ৯২ লাখ টাকা।

অর্থাৎ ২০১৩ অর্থবছরের তুলনায় ২০১৪ অর্থবছরে অনিষ্পত্তিকৃত দাবির পরিমাণ নয় শতাংশ অথবা ৫২ কোটি ৭৩ লাখ টাকা বেড়েছে।

এর মধ্যে সর্বোচ্চ ৩৮৬ কোটি ৪১ লাখ টাকা বিমা দাবি আটকে রেখেছে রূপালী ইন্স্যুরেন্স। এরপরেই রয়েছে রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্স।

কোম্পানিটি গ্রাহকের ৭৯ কোটি ৫২ ল্খা ২০ হাজার টাকা বিমা দাবি আটকে রেখেছে বলে আইডিআরএ সূত্রে জানা গেছে।

এদিকে কোম্পানিগুলোর পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, বিমা গ্রাহক (পলিসি হোল্ডার) দুর্ঘটনা-পরবর্তী সময়ে আইন অনুযায়ী দাবি সংক্রান্ত কাগজ পত্র জমা দেয় না। যার কারণে বিমা দাবি পরিশোধে কোম্পানিগুলোর অনেক সময় লেগে যায়।

অন্যদিকে বিমা সংশ্লিষ্টরা বলছে, বিমা জরিপকারী অর্থাৎ সার্ভেয়ারদের আচরণ বিধি আইডিআরএ এখনো চূড়ান্ত করতে পারেনি।

আর বিমা কোম্পানির যোগসাজশে এই সার্ভেয়ার কোম্পানিগুলোই নিয়ম বহির্ভূতভাবে গ্রাহকের দাবি আটকাতে কারসাজি করছে।

 

এখানে বিমা সার্ভেয়ার (জরিপকারী প্রতিষ্ঠান) দুর্ঘটনায় জনিত কারণে বিমাকৃত সম্পত্তির ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ করে। এই প্রতিষ্ঠানগুলো তৃতীয় পক্ষ হিসেবে কাজ করে।

এদিকে আইডিআরএ চলতি বছরের শুরুতে বিমা দাবির সুষ্ঠু সমাধানের জন্য বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটি চূড়ান্ত করে।

কিন্তু উচ্চ ব্যবস্থাপনা ফি এর কারণে দাবি পরিশোধ ত্বরান্বিত করতে কার্যকর কোনো ভূমিকাই পালন করতে পারছে না এই কমিটি।

অন্যদিকে বিমা আইন ২০১০ এর ৭২ ধারার ১ উপধারায় বলা হয়েছে, পরিশোধ যোগ্য গ্রাহকের বিমা দাবি কোম্পানি ৯০ দিনের মধ্যে পরিশোধে ব্যর্থ হলে বিষয়টি দ-নীয় অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হবে।

এর শাস্তি স্বরুপ একই ধারার ২ উপধারায় বলা হয়েছে, এমন অপরাধের জন্য কোম্পানিগুলোকে গ্রাহকের দাবির টাকার অঙ্কের ওপর প্রচলিত ব্যাংক সুদহারের অতিরিক্ত আরো ৫ শতাংশ সুদ মাসিক ভিত্তিতে পরিশোধ করতে হবে।

আইডিআরএ’র সদস্য মো: কুদ্দুস খান এ বিষয়ে বলেন, বিমা দাবি পরিশোধের ক্ষেত্রে আইনি কিছু জটিলতা রয়েছে।

যার সুযোগ কোম্পানিগুলো নিচ্ছে। যদিও এসব বিষয়ের জন্য আমরা বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটি করেছি।

আর বিমা দাবি পরিশোধ কিভাবে আরো সহজে করা যায় সেই বিষয়ে আইডিআরএ কাজ করছে।

বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ২০১৪ অর্থবছরে অগ্রণী ইন্স্যুরেন্সে দাবি আটকে রয়েছে এক কোটি পাঁচ লাখ ৪২ হাজার টাকা, এশিয়া ইন্স্যুরেন্সে নয় কোটি ৪১ লাখ, এশিয়া প্যাসিফিকে ১৩ কোটি ৯৩ লাখ টাকা, বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্সে (বিজিআইসি) পাঁচ কোটি ২৮ লাখ ৬৪ হাজার টাকা, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সে নয় কোটি টাকা, সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্সে তিন কোটি এক লাখ ৮৭ হাজার টাকা, সিটি জেনারেল ইন্স্যুরেন্সে তিন কোটি ৫২ লাখ ৫৬ হাজার টাকা,

কন্টিনেন্টাল ইন্স্যুরেন্সে ৪৮ হাজার টাকা, ঢাকা ইন্স্যুরেন্সে ৯ কোটি ৫২ লাখ টাকা, ইস্টল্যান্ড ইন্স্যুরেন্সে তিন কোটি ২১ লাখ টাকা, ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্সে নয় কোটি ৫৮ লাখ টাকা, গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্সে দুই কোটি ৬৫ লাখ ১৭ হাজার টাকা, গ্রীণ ডেল্টা ইন্স্যুরেন্সে ২০ কোটি ৫৬ লাখ ৮৪ হাজার টাকা,

ইসলামি ইন্স্যুরেন্সে সাত কোটি ১০ লাখ ৩০ হাজার টাকা, জনতা ইন্স্যুরেন্সে ৯১ লাখ ৩১ হাজার টাকা, কর্ণফুলী ইন্স্যুরেন্সে ছয় কোটি ৫ লাখ ৮৮ হাজার টাকা, মার্কেন্টাইল ইন্স্যুরেন্সে ১৭ কোটি ৬৫ লাখ টাকা, নিটল ইন্স্যুরেন্সে দুই কোটি ৫৪ লাখ ২৪ হাজার টাকা, নর্দান ইন্স্যুরেন্সে দুই কোটি ৭২ লাখ ৯৯ হাজার টাকা, পিপলস ইন্স্যুরেন্সে এক কোটি ৭৮ লাখ পাঁচ হাজার টাকা, পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্সে আট কোটি ৩২ লাখ ৮৩ হাজার টাকা,

প্রগতি ইন্স্যুরেন্সে ১২ কোটি ৯২ লাখ ৯২ হাজার টাকা, প্রাইম ইন্স্যুরেন্সে চার লাখ ৫৯ হাজার টাকা, প্রভাতি ইন্স্যুরেন্সে ১১ কোটি ৪৩ হাজার টাকা, রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্সে ৭৯ কোটি ৫২ লাখ ২০ হাজার টাকা, রিপাবলিক ইন্স্যুরেন্সে চার কোটি ৯১ লাখ টাকা, রূপালী ইন্স্যুরেন্সে ৩৮৬ কোটি ৪১ লাখ টাকা, স্ট্যান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্সে দুই কোটি ৭৯ লাখ ৫৩ হাজার টাকা, সোনারবাংলা ইন্স্যুরেন্সে চার লাখ ৩২ হাজার টাকা, তাকাফুল ইন্স্যুরেন্সে দুই কোটি ৫০ লাখ টাকা এবং ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্সে ৮৩ লাখ ৫২ হাজার ৬৪৬ টাকার বিমা দাবি আটকে আছে।

এই বিষয়ে বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স এসোসিয়েশনের (বিআইএ) প্রেসিডেন্ট শেখ কবির হোসেন বলেন, বিদ্যমান আইন অনুযায়ী বিমা দাবি পরিশোধ করতে কিছুটা সময়ের প্রয়োজন পড়ে। তাই দ্রুত সময়ে দাবি নিষ্পত্তি সম্ভব হয় না।

কিন্তু বিপুল পরিমাণ অর্থ বিমা কোম্পানির কাছে আটকে আছে।

এতে নন-লাইফ বিমায় নেতিবাচক প্রভাব পড়বে কিনা এই বিষয়ে তিনি বলেন, অধিকাংশ দাবিই আইন অনুযায়ী নিষ্পত্তি হবে। তাই এখানে নেতিবাচক প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা কম।

আর এখন বাজারে প্রতিযোগীতা বেড়েছে সুতরাং কোম্পানিগুলোকেই যথানিয়মে নিয়মিত দাবি পরিশোধ করতে হবে।

বিআইএ থেকে দ্রুত দাবি পরিশোধের জন্য কোন পরিকল্পনা কিংবা প্রস্তাবনা রয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি আরও বলেন, বিআইএ থেকে এখনো তেমন পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়নি।

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  • সর্বশেষ
  • সবচেয়ে পঠিত

জনমত জরিপ

অং সাং সু চির নোভেল পুরুষ্কার প্রত্যাহার করার জন্য আপনারা কি একমত ?

View Results

Loading ... Loading ...
ব্রেকিং নিউজ