রবিবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৭

নগর পিতা, না মশককুলের পিতা!

জুলাই ৩০, ২০১৭ 434 views 0
নগর পিতা, না মশককুলের পিতা!

মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম প্রধান :

থিত জনপ্রতিনিধিদের সেবার বদৌলতে রাজধানী ঢাকা মহানগরীর ঘরে ঘরে চিকুনগুনিয়া ‘মহামারী’ আকারে দেখা দিয়েছে। মশার কামড়ের মাধ্যমে ছড়ানো এ জ্বর এখন নগরবাসীর জন্য আতঙ্কের কারণে পরিণত হয়েছে। মশা নিয়ন্ত্রণের অভাবে এ রোগ আশঙ্কাজনকভাবে ছড়িয়ে পড়ছে। সুষ্ঠু নিয়ন্ত্রণের অভাবে এ রোগে আক্রান্তের সংখ্যা গাণিতিক হারে বাড়লেও কথিত নগর পিতারা সফলতার পরিচয় দিতে বরাবরের মতো ব্যর্থ।

 

অবস্থা যখন ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে তখন চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে নিয়ন্ত্রণকক্ষ খুলেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। এ ছাড়া মশা নিধনে সিটি করপোরেশনের তত্পরতা বাড়ানোর নির্দেশনা দিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম স্বয়ং। ‘চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে গৃহীত পদক্ষেপ’ বিষয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘যে দেশ জঙ্গি দমন করতে পারে, তারা মশা নিধন করতে পারবে না, তা হতে পারে না।’

 

‘মশা মারতে কামান দাগা’- এমন একটি প্রবাদ আমাদের সমাজে বেশ চালু আছে। সে কামান দিয়েও মশাকে কাবু করতে পারছে না আমাদের সেবক হিসেবে পরিচিত সিটি করপোরেশনের কর্তাব্যক্তিরা। অথচ কোটি কোটি টাকা খরচ দেখানো হয় এই খাতে। ইতিমধ্যেই নাকি এই খাতে ৩৬ কোটি টাকা খরচ হয়ে গেছে। যার সুফল মিলছে না নাগরিক জীবনে। আর এই হিসাবেও নাকি শুভঙ্করের ফাঁকি রয়েছে বলে মিডিয়ায় খবর এসেছে।

 

বড় বড় বুলি আওড়ানোরাও আজ ব্যর্থ। বিতর্কিত নির্বাচনে ঘোষিত নির্বাচিত মেয়র হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর মশার কাছে তারা পরাস্ত যে হচ্ছে, ঢাকা মহানগরীর ঘরে ঘরে চিকুনগুনিয়া ‘মহামারী’ রূপ, এর অকাট্য প্রমাণ। নগরীর নালা-ডোবাগুলো মশা উৎপাদনের কারখানায় পরিণত। নিয়মিত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার অভাবে মশা বংশবিস্তারের সুযোগ পাচ্ছে। আর মশানিধনের বদলে বরাদ্দকৃত কোটি কোটি টাকা নয়ছয়ের মাধ্যমে নগরবাসীকে যন্ত্রণার মধ্যে ঠেলে দেয়া হয়েছে।

 

নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে একজন বলছেন, ‘মশার পাসপোর্ট-ভিসা লাগে না, তাই এগুলো বাইরে থেকে আসছে।’ যে যা-ই বলুন না কেন, নগরবাসী মশার অসহনীয় উৎপাতে অতিষ্ঠ। আগে মশা কামড়ালে ডেঙ্গুজ্বর হতো। সে মশা বিকেল থেকে সন্ধ্যা রাত আর ভোর থেকে সকাল সাড়ে ৯টা মধ্যেই নাকি কামড়াত। তাই এই সময়টায় অনেকে সতর্ক থাকত। সচেতন মহল এর উৎপত্তিস্থল ডাবের খোসা, ফুলের টব এবং এ জাতীয় জিনিসপত্রে ও পাত্রে পানি জমতে দিত না।

 

বর্তমান চিকুনগুনিয়া মশা সম্পর্কে সে রকম ধারণা পাওয়া যাচ্ছে না। তবে আক্রান্ত ব্যক্তিকে দীর্ঘমেয়াদি সীমাহীন কষ্ট ভোগ করতে হয়। প্রচণ্ড জ্বরের পাশাপাশি বমি বমি ভাব থাকে। শরীরে চুলকানী এবং চুলকালে গোটার মতো ফুলে উঠে। শরীরের জয়েণ্টে জয়েন্টে অসহনীয় ব্যথা অনেককে কাবু করে ফেলে। ফলে তাদের দ্বারা সহজে কায়িক পরিশ্রম করা সম্ভব হয় না। এমনকি নামাজ পড়তেও কষ্ট হয়। অনেকে রোজা রাখতে পারেনি। এই রোগে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসার জন্য অনেক রোগী দেশের বাইরে গেছেন।

 

আমরা সবাই যখন জানি, মশা থেকে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়ার উৎপত্তি তখন আমাদের এ ব্যাপারে অধিক সতর্ক হওয়াই বাঞ্ছনীয়। যাদের বেশি দায়িত্ব তারা হলো সিটি করপোরেশন। একটি শহরকে মশামুক্ত করার আন্তরিক সদ্দিচ্ছা থাকলে রাজধানীতে এটি মহামারির রূপ নিত না। সেবার প্রতি দায়িত্বশীলরা কতটা অমনোযোগী, চিকুনগুনিয়া রোগটি তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিচ্ছে। মশাকে দমনের ব্যর্থতার নজির হিসেবে দুজন নির্বাচিত সাবেক মেয়র (হানিফ ও খোকা) ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়েছিলেন।

 

মশা মারা ও দমনের ক্ষেত্রে আমাদের সিটি করপোরেশন ‘ঢাল নেই, তলোয়ার নেই- নিধি রাম, সরদার নয়।’ তাদের প্রচুর লোকবল ও অঢেল অর্থ খাতে বরাদ্দ রয়েছে। একটু আন্তরিক হলে জনবল ও অর্থ কাজে লাগিয়ে আসল কাজটা করা কঠিন কোনো কাজ নয়। এ জন্য সততার সঙ্গে নগরবাসীর প্রতি কর্তব্যনিষ্ঠ হওয়ার আন্তরিক প্রয়াশই যথেষ্ট। দায় এড়ানো নয়, মশার মতো ক্ষুদ্র পানি নিধনে যারা ব্যর্থতার পরিচিয় দিচ্ছেন।

 

নগরবাসীকে প্রায প্রতিনিয়ত কাবু করছে অসহনীয় যানজট, একটু বৃষ্টিতেই শহরময় বন্যার পরিবেশ, ঢাকা শহরে বাতাসে সিসার আধিক্য, অধিকাংশ সড়কের বেহাল দশা, অকল্পনীয়ভাবে গ্যাস-বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধি, বাড়িভাড়া বৃদ্ধিসহ নাগরিকদের সেবার নানা মাত্রা অতিক্রম করবেন কীভাবে! প্রশ্ন উঠছে, ওনারা কি নগর পিতা, না মশককুলে পিতা। তার পরও আশাবাদী মানুষ হিসেবে আমাদের প্রত্যাশা, নগরবাসীকে ডেঙ্গুজ্বর ও চিকুনগুনিয়া থেকে মুক্ত রাখতে মশা নিধন ও বংশবিস্তার রোধে তারা সাঁড়াশি অভিযানে নামবেন।

 

Jahangir- Prodhan লেখক :

মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম প্রধান

সাধারণ সম্পাদক

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন
ই-মেইল : jalam_prodhan72@yahoo.com

 

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জনমত জরিপ

অং সাং সু চির নোভেল পুরুষ্কার প্রত্যাহার করার জন্য আপনারা কি একমত ?

View Results

Loading ... Loading ...
ব্রেকিং নিউজ