বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ এখন আর আঃ লীগে নেই

আগস্ট ১৫, ২০১৭ 420 views 0
বঙ্গবন্ধুর আদর্শ এখন আর আঃ লীগে নেই

রাকেশ রহমান :

রাজনীতিতে মত বিরোধ থাকতেই পারে তবে দেশের মহানায়ক নিয়ে মতবিরোধ থাকা উচিত নয়।বাংলাদেশে আজ কেউ কাউকে সম্মান করতে বা দিতে নারাজ।

 

একটি দেশ জন্মের পিছনে অবশ্যই কোন না কোন মহানায়কের ভূমিকা থাকে তেমনই বাংলাদেশ জন্মের পিছনের মহানায়কের ভূমিকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান শাসক হিসেবে নন বরং মহানায়ক হিসেবে নেতৃত্বদানে ঐতিহাসিক নেতা হিসেবে পরিচিত।

 

শাসন আমলে বঙ্গবন্ধুর শত্রু হয়ে দাড়িয়েছিলো সুবিধাবাদী আঃ লীগ নেতারাই। এই ঐতিহাসিক নেতাকে বিভিন্নভাবে ঘায়েল করতে করতে রাষ্ট্রকে বহুমুখি সমস্যার সমূখীন করে শেখ মুজিবর রহমানকে বাধ্য করেছিলো আ: লীগ নিষিদ্ধ করতে এবং বাকশাল চালু করতে।

 

উদার নেতাদের ভিতরে বঙ্গবন্ধুর চেয়ে এত বড় মনের নেতার অভাব রয়েছে গোটা বিশ্ব জুড়ে। সেই উদারতার সুযোগ নিয়েই কিছু বিপদ গামী নেতারা বহিঃবিশ্বের সাথে হাত লাগিয়ে একের পর এক নীল নকশা করেই যাচ্ছিলেন।

 

পাশাপাশি যারা তাঁকে ভালোবাসতো সেই সব তরুন নেতাদের সাথে দূরত্ব তৈরি করেছিল খুব সুন্দরভাবে। যারা প্রকৃত ভালোবাসতো বঙ্গবন্ধুকে তাদের বিভিন্ন ভাবে ভিন্ন পথে নিয়ে গিয়েছিলো নীল নকশাকারীরা।

 

কিছু নেতাদের জন্ম হয় নেতৃত্ব দেবার জন্য শাষক হবার জন্য নয় ঠিক তেমনই বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিলো এদেশের স্বাধীনতা এনে দিতে। এদেশের সাধারন জনগন ও মুক্তিকামী সেনা সদস্যরা যদি বঙ্গবন্ধুকে ভালোবেসে এগিয়ে না আসতো তাহলে আর যাই হোক দেশ স্বাধীন হত না।

 

বঙ্গবন্ধুর পূর্বের অবস্থার জন্য যেমন আঃ লীগ নেতারা দায়ী ঠিক তেমনই বর্তমান পেক্ষাপটে বঙ্গবন্ধুকে উচ্চ আসন থেকে নামিয়ে আনার পিছনে আঃ লীগ নেতারাই দায়ী। অনেক আঃ লীগ নেতারাই সম্মানের বদলে অসম্মানই করছে বঙ্গবন্ধুকে।

 

সব থেকে বড় উদাহরণ হচ্ছে মুজিব কোট আজ অসম্মানিত ভাবে ব্যবহার হচ্ছে। বঙ্গবন্ধুকে ব্যাঙ্গ করা হচ্ছে। মুজিব কোটেরও নিজেস্ব একটা মডেল রয়েছে যেমন ৬ বোতামের হতে হবে এবং কালো হতে হবে।

 

আজ আমরা অনেককেই দেখছি এমনকি সিনিয়ার নেতারাও রং বেরং এর মুজিব কোটের মত কোট পড়ছে আসলে সেগুলো কোনটাই মুজিব কোট নয় এতে অসম্মান করা হচ্ছে বঙ্গবন্ধুকে। এমনকি ৭১ এ মুক্তিযুদ্ধের সময়কার বিভিন্ন ভূমিকা নিয়ে আঃ লীগ নেতারাই বঙ্গবন্ধুকে জড়িয়ে প্রশ্ন তুলছে।

 

বিশেষ করে এই সরকারের আমলেই বঙ্গবন্ধুকে বেশি বেশি অসম্মানিত করা হয়েছে। আমার প্রশ্ন কেন? আমি ২০ দলীয় জোটের একটি দল করে কেনইবা বঙ্গবন্ধুর জন্য লিখতে যাবো??? কারন আমরা যেই দলই করি না কেন জাতীয় নেতাদের সম্মান করা ছাড়া রাজনৈতিক পদযাত্রা আমার বা আমাদের শুভ হবে না।

 

৭১ এর মুক্তিযুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর পর পরই মেজর শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের বিশেষ ভূমিকা রয়েছে তা অস্বীকার করলে ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধোকে অপ্রমানিত করা হবে। শহীদ জিয়া শাসক হিসেবে বিশ্ব প্রশংসার দাবীদার।

 

বিগত আট বছরে বহু বড় বড় লেখকের বহু লেখা আমি পড়েছি বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কিন্তু অসম্মানের কারন গুলো কেউ বললেন না বা লিখলেন না কারন তারা বাস্তবে আমার মতন বঙ্গবন্ধুকে ভালোবাসেনা।

 

আর যাই হোক আইন করে জোড় করে বঙ্গবন্ধুকে ভালোবাসানো যাবেনা। যারা ভালোবাসার তারা নিজের থেকেই ভালোবাসবে। তবে বঙ্গবন্ধুকে মেজর জিয়ার সাথে কোন ক্ষেত্রেই তুলনা করা যাবে না।

 

৭৫ এর পর থেকে বিএনপি যত বার ক্ষমতায় ছিলো কখনই তারা বঙ্গবন্ধুকে অসম্মান করেননি। কিন্ত গত আট বছরে কেন এত অসম্মান করা হচ্ছে বঙ্গবন্ধুকে ?

 

যেই আঃ লীগ শুধু মাত্র বঙ্গবন্ধুর নামের উপর বেঁচে আছে সেই আঃ লীগ তাহলে কেন তার সম্মান ধুলোয় মিশাচ্ছে??? তাহলে কি সেই ৭৫ এর অশুভ মহল যারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিলো তাঁরাই এখন আঃ লীগের ভিতরে বসে বঙ্গবন্ধুর জনপ্রিয়তা কমিয়ে দলের ইতি ঘটাতে চেষ্টা করছে!?

 

৭৫ এর পর থেকে আমার চোখের দেখা বহু বিএনপির নেতা কর্মীদের বাড়িতেও বঙ্গবন্ধু ও মেজর জিয়ার ছবি দেওয়ালে ছিলো কিন্তু এখন ? জানিনা বর্তমানে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী তার এই দিক গুলো নিয়ে ভেবে দেখবার সময় আছে কি না?

 

তবে ভবিষ্যতে বঙ্গবন্ধুর অসম্মান আওয়ামী লীগের জন্য শুভ কিছু বয়ে আনবে না। বঙ্গবন্ধু হত্যার পর বিশ্বের নামি দামি নেতাদের কিছু উক্তি তুলে ধরছি। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডে বাঙলাদেশই শুধু এতিম হয়নি, বিশ্ববাসী হারিয়েছে একজন মহান সন্তানকে’- জেমসলামন্ড, ইংলিশ এমপি।

 

ব্রিটিশ লর্ড ফেন্যার ব্রোকওয়ে বলেছিলেন, ‘শেখ মুজিব জর্জ ওয়াশিংটন, গান্ধী এবং দ্য ভ্যালেরার থেকেও মহান নেতা ছিলেন।’

 

জাপানী মুক্তি ফুকিউরা আজও বাঙালি দেখলে বলে বেড়ান, ‘তুমি বাংলার লোক? আমি কিন্তু তোমাদের জয় বাংলা দেখেছি। শেখ মুজিব দেখেছি। জানো এশিয়ায় তোমাদের শেখ মুজিবের মতো সিংহ হৃদয়বান নেতার জন্ম হবে না বহুকাল।’

 

ফিদেল ক্যাস্ত্রো বলেন, ‘আমি হিমালয় দেখিনি, বঙ্গবন্ধুকে দেখেছি’। তিনি আরও বলেন, ‘শেখ মুজিবের মৃত্যুতে বিশ্বের শোষিত মানুষ হারাল তাদের একজন মহান নেতাকে, আমি হারালাম একজন অকৃত্রিম বিশাল হৃদয়ের বন্ধুকে।’

 

হেনরি কিসিঞ্জার বলেন, ‘আওয়ামী লীগ নেতা শেখ মুজিবুর রহমানের মতো তেজি আর গতিশীল নেতা আগামী বিশ বছরের মধ্যে এশিয়া মহাদেশে আর পাওয়া যাবে না।’

 

ইরাকের ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হচ্ছেন সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামের প্রথম শহীদ। তাই তিনি অমর।’

 

ইয়াসির আরাফাত বলেন, ‘আপসহীন সংগ্রামী নেতৃত্ব আর কুসুম কোমল হৃদয় ছিল মুজিব চরিত্রের বৈশিষ্ট্য।’

 

ফিন্যান্সিয়াল টাইমস্ উল্লেখ করে, ‘মুজিব না থাকলে বাংলাদেশ কখনই জন্ম নিত না।’

 

ভারতীয় বেতার ‘আকাশ বাণী’ ১৯৭৫ সালের ১৬ আগস্ট তাদের সংবাদ পর্যালোচনা অনুষ্ঠানে বলে, ‘যিশু মারা গেছেন। এখন লক্ষ লক্ষ লোক ক্রস ধারণ করে তাকে স্মরণ করছেন। মূলত একদিন মুজিবই হবেন যিশুর মতো।’

 

একই দিন লন্ডন থেকে প্রকাশিত ডেইলি টেলিগ্রাফ পত্রিকায় বলা হয়, ‘বাংলাদেশের লাখ লাখ লোক শেখ মুজিবের জঘন্য হত্যাকাণ্ডকে অপূরণীয় ক্ষতি হিসেবে বিবেচনা করবে।’

 

নিউজ উইকে বঙ্গবন্ধুকে ‘পয়েট অব পলিটিক্স’ বলে আখ্যা দেয়া হয়। মজলুম জননেতা মাওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীও বলেছিলেন, ‘টুঙ্গিপাড়ার শেখ মুজিবের কবর একদিন সমাধিস্থলে রূপান্তরিত হবে এবং বাঙালির তীর্থস্থানের মতো রূপলাভ করবে’।

 

আমি বঙ্গবন্ধুকে দেখিনী আমি তার ইতিহাস নয় বরং তাকে যারা দেখেছে তাদের কাজ থেকে শুনে শুনে বঙ্গবন্ধুকে সম্মান ও ভালোবাসতে শিখেছি। আগষ্ট শোকের মাস প্রচার না করে বরং নতুন প্রজন্মের কাছে গিয়ে গিয়ে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনৈতিক জীবন তুলে ধরতে হবে।

 

শুধু বঙ্গবন্ধুর কন্যার সামনে দলীয় পদের জন্য গুনগান গাইলে হবে না । সারা মাস জুড়ে মিথ্যা শোক না করে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের নেতা তৈরী করতে হবে কর্মশালার মাধ্যমে।

 

আঃ লীগে অন্তত পাঁচ জনের অধিক নেতা তৈরী করতে হবে যারা বঙ্গবন্ধুর মতন করে দেশের সাধারন জনগনের জন্য কিছু করে যাবেন। তাই সারা বছর না পারলেও আগষ্ট মাসটি রাখতে হবে শুধুই বঙ্গবন্ধু আদর্শের নেতা তৈরীর মাস হিসেবে।

 

লেখকঃ

রাকেশ রহমান

প্রেসিডিয়াম সদস্য, এনডিপি

(২০ দলীয় জোটের শরিক দল),

প্রবাস থেকে।

E-mail- rakesh_rahman@libero.it

Phone – 0039 3270989409

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জনমত জরিপ

অং সাং সু চির নোভেল পুরুষ্কার প্রত্যাহার করার জন্য আপনারা কি একমত ?

View Results

Loading ... Loading ...
ব্রেকিং নিউজ