বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

পার্শ্ববর্তী দেশের প্রতি অতি ভক্তির কারনই এই বন্যা

আগস্ট ১৬, ২০১৭ 463 views 0
পার্শ্ববর্তী দেশের প্রতি অতি ভক্তির কারনই এই বন্যা

নাবিহা রহমান :

ন্যা ধেয়ে আসছে! নওগাঁয় বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি ঘটেছে। বাঁধ ভেঙ্গে উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের অর্ধশতাধিক গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এসব এলাকায় ভেসে গেছে শত শত পুকুরের মাছ।

 

তলিয়ে গেছে হাজার হাজার একর জমির রোপা-আমনের ক্ষেত। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে লক্ষাধিক মানুষ। উঁচু স্থান ও সড়কে আশ্রয় নিয়েছে দুর্গত মানুষ।

 

এসব এলাকায় খাবার ও বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যে কেন্দ্র নওগাঁ জেলাকে সতর্ক করে দেওয়া হলেও কোন কিছু করার উপেক্ষা না করে নওগাঁ শহরের ছোট যমুনা নদীর ফ্লাড ওয়ালের আউটলেট দিয়ে পানি প্রবেশ করে শহরের অনেকাংশে পানি ঢুকে পড়েছে।

 

এসব এলাকার রাস্তা এবং বাড়িঘরে পানি ঢুকেছে। শহরের আক্রান্ত এলাকার প্রায় ৪০ হাজার মানুষ জলমগ্ন হয়ে পড়েছেন। ছোট যমুনা নদীর ফ্লাডওয়ালের আউটলেট গুলো দিয়ে শহরে পানি ঢুকে পড়ায় শহরের ডিগ্রীর মোড়, বিহারী কলোনী, উকিলপাড়া, জেলা প্রশাসকের বাসভবন, পুরনো কোর্ট এলাকা, সুপারীপট্টি, ডালপট্টি, কালিতলা, পার-নওগাঁ মহল্লা জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। উকিলপাড়া সড়ক, কাচারী সড়ক, কেডির মোড় থেকে মুক্তিরমোড় সড়ক পানির নিচে তলিয়ে গেছে। আজ উত্তরাঞ্চলে বন্যার অবস্থা আরও খারাপ। নুতন করে এই বন্যায় এখন পর্যন্ত ১৩ জন মারা গিয়েছে।

 

বিজ্ঞানীরা মনে করছেন, এই বন্যা বাংলাদেশের সাম্প্রতিক বছরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ ১৯৮৮ সালের বন্যাকেও ছাড়িয়ে যেতে পারে।

 

এখন কথা হল বন্যা হওয়ার ইস্যু; প্রাকৃতিক দূর্যোগ আসতেই পারে ঝড় বৃষ্টি বন্যা ইত্যাদি আর সেইটা সৃষ্টিকর্তার ইচ্ছা কিন্তু যেসব মানবকুলের হাতে সেইখানে তো আর প্রাকৃতিক দূর্যোগ বলে উড়িয়ে দিতে পারিনা।

 

পার্শ্ববর্তী দেশের প্রতি অতি ভক্তির কারনই এই বন্যা। ভারতের বাঁধগুলো খুলে দেওয়ায় দেশের উত্তর ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলের প্রায় সবকটি জেলা ভয়াবহ বন্যায় প্লাবিত হয়ে গেছে।

 

সীমান্তবর্তী ভারতীয় রাজ্যগুলো দিয়ে ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা ও গঙ্গা নদী বাংলাদেশে প্রবেশ করায় বানের পানিতে প্রতিনিয়ত প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। ইতিমধ্যে দিনাজপুরে রেলপথ ও মহাসড়ক পানিতে তলিয়ে গিয়ে সারা দেশের সঙ্গে রেল যোগাযোগ এবং ঢাকার সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

 

সৈয়দপুর বিমানবন্দরে পর্যন্ত পানি ঢুকে পড়েছে। অথচ ভারত সৃষ্ট এই প্রলয়ংকরী বন্যার বিরুদ্ধে জোড়ালো কোন প্রতিবাদ নেই। বাংলাদেশের কাছ থেকে প্রত্যাশার চাইতেও বেশী পেয়েছে ভারতীয়রা।

 

কিন্তু আমরা ভারতের কাছ থেকে কি পেয়েছি? শুধুই আশ্বাস। হায়রে আফসোস! আমরা কিছুই করতে পারছিনা, কেউই প্রতিবাদ করার নেই। আমরা জীবিত থেকেও মৃত লাশ। আমরা আমাদের মৌলিক অধিকারটাও আদায় করে নেওয়ার অযোগ্য।

 

 

nabila rahman

লেখকঃ

নাবিহা রহমান

প্রেসিডিয়াম সদস্য, এনডিপি

(২০ দলীয় জোটের শরিক দল),

প্রবাস থেকে।

 

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জনমত জরিপ

অং সাং সু চির নোভেল পুরুষ্কার প্রত্যাহার করার জন্য আপনারা কি একমত ?

View Results

Loading ... Loading ...
ব্রেকিং নিউজ