বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

ধরণী কাঁপিয়ে হাইড্রোজেন বোমার সফল পরীক্ষা উত্তর কোরিয়ার

সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৭ 355 views 0
ধরণী কাঁপিয়ে হাইড্রোজেন বোমার সফল পরীক্ষা উত্তর কোরিয়ার

প্রথম নিউজ আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ধরণী কাঁপিয়ে হাইড্রোজেন বোমার পরীক্ষা চালিয়েছে উত্তর কোরিয়া। দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রে জুড়ে দেয়া যাবে এমন পরমাণু অস্ত্রের সফল পরীক্ষা চালানোর দাবি করেছে দেশটি।

 

রোববার দেশটির উত্তর-পূর্ব কিজু এলাকায় ভূকম্পন অনুভূত হওয়ার কয়েক ঘণ্টা পর পিয়ংইয়ংয়ের পক্ষ থেকে নিজেদের ষষ্ঠ পরমাণু বোমার পরীক্ষা চালানোর দাবি করা হয়।

 

গত বছরের সেপ্টেম্বরে চালানো পঞ্চম পরমাণু বোমাটি থেকে এবারেরটি ৯.৮ গুণ বেশি শক্তিশালী বলে জানিয়েছে উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা কেসিএনএ।

 

পিয়ংইয়ং বলেছে, তাদের পরীক্ষা চালানো হাইড্রোজেন বোমাটি আণবিক বোমার চেয়েও কয়েকগুণ বেশি শক্তিশালী। বিশ্লেষকরা বলেছেন, উত্তর কোরিয়ার দাবি নিয়ে সন্দেহ থাকলেও দেশটির পারমাণবিক সক্ষমতা যে বাড়ছে, তাতে কোনো সন্দেহ নেই।

 

রোববার সকালে উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা কেসিএনএ ‘আরও উন্নত প্রযুক্তির হাইড্রোজেন বোমা’ তৈরির দাবি করার ঘণ্টাখানেকের মধ্যে পানগেয়ি-রি পরমাণু পরীক্ষা কেন্দ্রের কাছেই ৬.৩ মাত্রার ভূকম্পনের খবর দেয় দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপান।

 

চীনের আর্থকোয়েক অ্যাডমিনিস্ট্রেশনও ভূমিকম্প ‘বিস্ফোরণের কারণে’ সৃষ্ট হয়েছে বলে ধারণা করছে। প্রাথমিকভাবে যুক্তরাষ্ট্রের ভূ-জরিপ অধিদফতর ভূমিকম্পের মাত্রা ৫ দশমিক ৬ মাত্রার বললেও পরে সেটি বাড়িয়ে ৬ দশমিক ৩ মাত্রার বলা হয়। উচ্চমাত্রার কম্পনের কারণে একে উত্তরের চালানো সবচেয়ে বড় পরীক্ষা বলেও ধারণা করা হচ্ছে। কম্পনের পরপরই জরুরি বৈঠকে বসে দক্ষিণ কোরিয়ার সিকিউরিটি কাউন্সিল।

 

জাপানের প্রধানমন্ত্রী এ পরীক্ষার নিন্দা জানিয়েছেন। তাদের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, তিনটি সামরিক বিমান ভূমিকম্পের কারণে সৃষ্ট বিকিরণ মাপতে রওনা হয়েছে। জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞার মধ্যেই গত বছরের সেপ্টেম্বরে সর্বশেষ পারমাণবিক পরীক্ষা চালায় পিয়ংইয়ং। এরপরও তারা ধারাবাহিকভাবে বিভিন্ন মাত্রার ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়ে আসছে।

 

গত সপ্তাহে তাদের ছোড়া হোয়াসং-১২ ক্ষেপণাস্ত্র জাপানের ওপর দিয়ে উড়ে গিয়ে প্রশান্ত মহাসাগরে পড়ে। অত্যাধুনিক হাইড্রোজেন বোমার সফল পরীক্ষা চালানোর দাবি করার পর এর নিন্দা জানিয়ে উত্তর কোরিয়াকে ‘দুর্বৃত্ত রাষ্ট্র’ আখ্যা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। উত্তর কোরিয়ার এ কর্মকাণ্ডকে ‘খুবই বৈরী এবং যুক্তরাষ্ট্রের জন্য ভয়ঙ্কর’ বলে এক টুইটে বর্ণনা করেছেন তিনি। দক্ষিণ কোরিয়া, চীন এবং রাশিয়া প্রত্যেকেই এ পরীক্ষার নিন্দা জানিয়েছে। তাদের সঙ্গে নিন্দায় যোগ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রও।

 

ট্রাম্প বলেন, উত্তর কোরিয়ার প্রতি দক্ষিণ কোরিয়ার সংহতির ভাষা কাজে আসছে না। দেশটি কেবল একটি জিনিসই বোঝে। তিনি বলেন, উত্তর কোরিয়া একটি দুর্বৃত্ত রাষ্ট্র। তারা চীনের জন্য একটি বড় ধরনের হুমকির পাশাপাশি তাদের জন্য বিব্রতকরও হয়ে উঠছে। চীনের চেষ্টা তেমন সফল হচ্ছে না।

 

মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেমস ম্যাটিস সতর্ক করে বলেছেন, উত্তর কোরিয়া যদি যুক্তরাষ্ট্র কিংবা মিত্র দেশগুলোর জন্য হুমকি হয়ে ওঠে তবে তাদের বড় ধরনের সামরিক জবাবের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।

 

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে ইন উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে সম্ভাব্য সবচেয়ে কঠোর প্রতিক্রিয়া জানানোর আহ্বান জানিয়েছেন। উত্তর কোরিয়াকে আন্তর্জাতিক অঙ্গন থেকে সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন করে ফেলতে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের নতুন নিষেধাজ্ঞার আহ্বান জানান তিনি।

 

উত্তর কোরিয়ার পদক্ষেপে অত্যন্ত হতাশ এবং ক্ষুব্ধ জানিয়ে মুন জায়ে ইন বলেন, দেশটির অস্ত্র কর্মসূচি বিশ্ব শান্তির জন্য হুমকি এবং এতে দেশটি আরও বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে।

 

উত্তর কোরিয়ার প্রধান মিত্র দেশ চীনও তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেছে, উত্তর কোরিয়া আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের ব্যাপক বিরোধিতাকে আমলে নেয়নি। ফ্রান্স এবং জার্মানিও উত্তর কোরিয়ার পদক্ষেপকে ‘নতুন মাত্রার উসকানি’ বলে এর নিন্দা জানিয়েছে। আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থা (আইএইএ) উত্তর কোরিয়ার এ পদক্ষেপকে ‘অত্যন্ত দুঃখজনক কর্মকাণ্ড’ বলে বর্ণনা করেছে।

 

এএফপি জানায়, উত্তর কোরিয়ার হাইড্রোজেন বোমার পরীক্ষার জবাবে দেশটির পরমাণু স্থাপনার মডেল তৈরি করে ক্ষেপণাস্ত্রের মহড়া চালিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া। সোমবারের এ মহড়ায় যুদ্ধবিমান ও ভূমি থেকে ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়। দক্ষিণ কোরিয়া এ মহড়ার ছবিও প্রকাশ করেছে। ছবিতে দেখা যায়, দক্ষিণ কোরিয়ার পূর্ব উপকূল থেকে দেশটির সেনাবাহিনী পরীক্ষামূলকভাবে ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ছে।

 

এদিকে উত্তর কোরিয়ার সাম্প্রতিক পরমাণু বোমা পরীক্ষার প্রতিক্রিয়ায় জরুরি বৈঠকে বসে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ। পিয়ংইয়ংয়ের ব্যাপারে জাতিসংঘের কঠোর পদক্ষেপ দেখতে চায় যুক্তরাষ্ট্র।

 

জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালি উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে ‘সম্ভাব্য সবচেয়ে কঠোর’ পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। সোমবারের ওই জরুরি বৈঠকে নিকি হ্যালি বলেন, ‘উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উন একটি যুদ্ধ চাচ্ছে।’ দেরি হয়ে যাওয়ার আগে এখনই সব ধরনের কূটনৈতিক উপায় আমাদের অবলম্বন করতে হবে।’ যেসব দেশ উত্তর কোরিয়ার পরমাণু অস্ত্রের উচ্চাকাক্সক্ষার সহযোগিতা করছে এবং তাদের সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্য করছে সেসব দেশের বিরুদ্ধেও হুশিয়ারি দেন নিকি হ্যালি।

 

জরুরি বৈঠকের উদ্বোধন করে জাতিসংঘের উপমহাসচিব জিফ্রে ফেল্টম্যান বলেন, উত্তর কোরিয়ার কর্মকাণ্ড বিশ্বের নিরাপত্তা অস্থিতিশীল করে তুলছে। এ সময় নিরাপত্তা পরিষদের বিধিবিধান মেনে চলার জন্য পিয়ংইয়ংয়ের প্রতি আহবান জানান তিনি।

 

তিনি বলেন, উত্তর কোরিয়াই একমাত্র দেশ যে পরমাণু অস্ত্র পরীক্ষার মাধ্যমে জাতিসংঘের নিয়ম-কানুন অব্যাহতভাবে লঙ্ঘন করে যাচ্ছে। বিবিসি।

 

উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক পরীক্ষায় ঢাকার উদ্বেগ :

উত্তর কোরিয়া ষষ্ঠ পারমাণবিক পরীক্ষা চালানোয় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ। ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সোমবার এক বিবৃতিতে জানায়, উত্তর কোরিয়া বারবার পারমাণবিক পরীক্ষা চালানোয় বাংলাদেশ গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উদ্বেগ উপেক্ষা করে ৩ সেপ্টেম্বর উত্তর কোরিয়া ষষ্ঠ পারমাণবিক পরীক্ষা চালিয়েছে।

 

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে আরও বলা হয়, উত্তর কোরিয়া এ কাণ্ড ঘটিয়ে আঞ্চলিক শান্তি, নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতার জন্য হুমকির সৃষ্টি করেছে। বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক শান্তি এবং আঞ্চলিক শান্তি ও নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে এমন ধরনের একতরফা কাণ্ড থেকে বিরত থাকার জন্য উত্তর কোরিয়ার প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জনমত জরিপ

অং সাং সু চির নোভেল পুরুষ্কার প্রত্যাহার করার জন্য আপনারা কি একমত ?

View Results

Loading ... Loading ...
ব্রেকিং নিউজ