বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

পবিত্র রমজান ও ঈদুল ফিতর নির্বিঘ্নে পালনের লক্ষ্যে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা: আইজিপি

জুন ১৫, ২০১৫ 21 views 0
পবিত্র রমজান ও ঈদুল ফিতর নির্বিঘ্নে পালনের লক্ষ্যে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা: আইজিপি

প্রথম নিউজ প্রতিবেদক আসন্ন পবিত্র রমজান ও ঈদুল ফিতর নির্বিঘ্নে পালনের লক্ষ্যে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ পুলিশ।

রমজানে রাস্তাঘাট, লঞ্চ ও বাস টার্মিনালসহ সবক্ষেত্রে চাঁদাবাজি বন্ধ করতে পুলিশের পক্ষ থেকে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক।

আজ সোমবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের সম্মেলন কক্ষে পবিত্র রমজান ও ঈদুল ফিতর উদযাপন উপলক্ষে আইন-শৃঙ্খলা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা জানান।

 

আইজিপি বলেন, পরিবহন মালিক, লঞ্চ মালিক, সিটি করপোরেশন, দোকান মালিকসহ সংশ্লিষ্ট প্রত্যেক সংগঠনের সঙ্গে নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থা নিয়ে কথা হয়েছে।

ঈদে ঘরমুখো মানুষের যাতায়াতে যেনো কোনো ধরনের দুর্ভোগে পরতে না হয় সে জন্য পরিবহন সংশ্লিষ্টদের বলা হয়েছে।

ছিনতাইয়ের ঘটনাগুলো এড়াতে নিরাপত্তার স্বার্থে মহাসড়কে যানবাহন দাঁড় না করানোর জন্য বলা হয়েছে।

লঞ্চ ও ফেরিঘাটে চাঁদাবাজি রুখতে সংশ্লিষ্টদের বলা হয়েছে। মহাসড়কে ডাকাতি প্রতিরোধ এবং যানজট নিরসনে হাইওয়ে ও জেলা পুলিশ বিশেষভাবে তৎপর খাকবে এবং দায়িত্ব পালন করবে।

তিনি আরও বলেন, নিষ্ঠা ও পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে জনগণের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত ও পবিত্র রমজান এবং ঈদ উদযাপন নির্বিঘœ করতে পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

 

পবিত্র রমজান মাসে ট্রেন, বাস ও লঞ্চে নিরাপদ চলাচল, যাত্রীদের নিরাপত্তা, সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি, ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ ও ব্যবস্থাপনা, ঈদ জামায়াতের নিরাপত্তা, অজ্ঞান পার্টি ও জাল টাকার অপব্যবহার রোধ করা হবে।

আইজিপি বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংককে বলা হয়েছে নিরাপত্তার স্বার্থে ব্যাংকের ভেতরে এবং বাহিরে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করতে।

পুলিশ স্কট ছাড়া কোন ধরনের টাকা পরিবহন যাতে না হয় সে জন্য বাংকগুলোকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। রাজধানীর শপিং সেন্টার গুলোতে সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় আনতে কর্তৃপক্ষকে বলা হয়েছে।

আইজিপি বলেন, মহসড়কগুলোতে গাড়ি থামিয়ে যানজট সৃস্টি করে কোন চাঁদাবাজি চলবে না।

 

পুলিশ যদি এ ধরনের কাজ করে তাহলে মামলা করে সংশ্লিস্ট পুলিশের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

একই সঙ্গে তিনি বলেন, ফেরি ঘাটগুলোতে নির্ধারিত টোলের বাইরে কোন টাকা উঠালে সে বিষয়েও কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি আরো বলেন, ঘরমুখো মানুষের নিরাপদ যাতায়াতের জন্য রেলওয়ে স্টেশন, বাস ও লঞ্চ টার্মিনালে টিকেট কালোবাজারী প্রতিরোধে পুলিশ, মালিক ও শ্রমিক নেতৃবৃন্দ এবং কমিউনিটি পুলিশের সমন্বয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

নৌ পুলিশ এবং অন্যান্য পুলিশ ইউনিট নৌপথে নিরাপত্তার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় টহলের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। আইজিপি বলেন, পবিত্র রমজান এবং ঈদ উদ্যাপনে পুলিশকে সহায়তা করতে সচেতন নাগরিকদের এগিয়ে আসতে হবে।

 

এ পুলিশ প্রধান বলেন, যানজট নিরসনের লক্ষ্যে সিটি কর্পোরেশনের সংশ্লিস্টদের অতিসত্তর রাজধানীর ভাঙ্গা রাস্তঘাটগুলো মেরামতের জন্য বলা হয়েছে।

রমজানের সময় রাস্তা খোড়াখুড়ি বন্ধ রেখে নিমার্ধাধীন ফ্লাইওভারের কাজ দ্রুত শেষ করার জন্যও বলা হয়েছে।

এছাড়া ট্রাফিক পুলিশের পাশাপাশি কমিউনিটি পুলিশের মাধ্যমে রাজধানীতে যানজট নিয়ন্ত্রনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

আইজিপি শহিদুল হক বলেন, রমজানে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজনের সঙ্গে কথা হয়েছে।

 

ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দের সাথে কথা হয়েছে। রমজান ও ঈদে শপিং মলগুলোতে যাতে ক্রেতারা নির্বিঘে কেনাকাটা করতে পারে সে জন্য পুলিশী পাহারা থাকবে। শপিং সেন্টারের সামনে কোন গাড়ি পাকিং করা যাবে না।

শপিং সেন্টারের নিরাপত্তার জন্য সিটি টিভি স্থাপন থাকবে।

আইজিপি বলেন, রমজান ও ইদ উপলক্ষে বৃদ্ধি পাওয়া অজ্ঞান ও মলম পার্টি প্রতিরোধে পুলিশের গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করা হয়েছে।

এছাড়া জাল টাকা তৈরি চক্রের বিরুদ্ধেও অভিযান শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে কয়েকজন ধরা পড়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন হয়ে দাড়িয়েছে, সাধারন মানুষকে সচেতনতা।

সাধারণ মানুষদের সচেতন হতে হবে। অপরিচিত লোকজনের দেয়া কোনো খাবার খাওয়া বন্ধ করতে হবে।

 

আইজিপি বলেন, ফরমালিন ও রাসায়নিক উপাদান মিশ্রিত ফল ও খাদ্যদ্রব্য বিরোধী মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে। তিনি দায়িত্বশীলতার সাথে এ অভিযান পরিচালনার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, কমিউনিটি পুলিশিং এর মাধ্যমে জনগণের সাথে সুসম্পর্ক গড়ে তুলে তাদেরকে সাথে নিয়ে অপরাধ দমনে কাজ করতে হবে।

 

সংবাদ সম্মেলনে এসবির অতিরিক্ত আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী, সিআইডির অতিরিক্ত আইজিপি শেখ হিমায়েত হোসেন, ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া, ঢাকা রেঞ্জ, হাইওয়ে, রেলওয়ে, পিবিআই, নৌ ও ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশসহ অন্যান্য ইউনিটের ডিআইজিসহ অন্যান্য উর্ধ¦তন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জনমত জরিপ

অং সাং সু চির নোভেল পুরুষ্কার প্রত্যাহার করার জন্য আপনারা কি একমত ?

View Results

Loading ... Loading ...
ব্রেকিং নিউজ