বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

গনতন্ত্র পুনরুদ্ধারের চলমান আন্দোলন ব্যর্থ হয়নি, পতন এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র : তারেক রহমান ( ভিডিও সহ)

মে ২৮, ২০১৫ 73 views 0

প্রথম নিউজ অনলাইন ডেস্ক : বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান আন্দোলন নিউজকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, গণতন্ত্র পৃনরূদ্ধারে চলমান আন্দোলন ব্যর্থ হয়নি। দেশের গণতন্ত্রকারী জনগণ এবং বিশ্বের প্রতিটি গনতান্ত্রিক রাষ্ঠ্রের কাছে এখন প্রমানিত বাংলাদেশে গণতন্ত্র নেই।

 

বর্তমান ক্ষমতাসীনরা জনগণ থেকে বিচ্ছিন এবং বর্তমান নির্বাচন কমিশন দিয়ে কোন নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়। তিনি সম্প্রতি আন্দোলন নিউজ এর কাছে একান্ত স্বাক্ষাতকারে এ কথা বলেন।

 

তারেক রহমা্ন আরও বলেন, ক্ষমতাসীনরা জানে তাদের সাথে জনগণ নেই। তাই তারা জনগণের উপর নির্যাতনের মাত্রা বাড়িয়ে দিয়েছে। তবে এই অবৈধ সরকারের পতন সময়ের ব্যপার মাত্র।

 

আন্দোলনে ব্যর্থ নয় বিজয় হয়েছে

 

আন্দোলন এই জন্য ব্যর্থ হয়নি আমরা যদি গত বছর ৫ই জানুয়ারীর সেই অবৈধ্ নির্বাচনকে ধরি তাহলে সে সময় আমাদের দল থেকে সমগ্র দেশবাসীর কাছে আমরা অনুরোধ করেছিলাম, আহবান করেছিলাম- যেহুতু সেই ৫ তারিখের তথাকথিত নির্বাচনটি একটি অবৈধ নির্বাচন। সেই নির্বাচনে সঠিক ভাবে জনগণের মতামত প্রতি ফলিত হবেনা।

 

সেই জন্য আমরা দেশের ভোটারদেরকে আহবান করেছিলাম তারা জেনো তাদের মূল্যবান ভোটটি না দেন। তাদের ভোটটি জেনো নষ্ট না হয় অর্থাৎ তাদের আমানত জেনো নষ্ট না হয়। সেই জন্যই আমরা আহবান করেছিলাম।

 

আপনারা পরবর্তিতে দেখেছেন যে, শতকরা ৯৫ থেকে ৯৬ শতাংশ মানুষ সে দিন তারা ভোট দান থেকে বিরত ছিল। বিরত থাকার অর্থ এটাই প্রমান করে আমরা দেশের মানুষকে যা বলতে চেয়েছি। তা দেশের মানুষ এবং দেশের জনগণ তা বুঝতে পেরেছে। তাই তারা ভোট দান থেকে বিরত ছিল। তাই এটি আমাদের আন্দোলনের প্রথম বিজয়।

 

তিনি আরও বলেন, দ্বিতীয় বিজয় হচ্ছে- আমরা বরাবর বলে এসেছি এই অবৈধ শেখ হাসিনার সরকার এবং এই অবৈধ এই পলিটিসাইজ নির্বাচন কমিশনের অধীনে কোন রকম নির্বাচন সঠিক, সচ্ছ, নিরপেক্ষ নির্বাচন করা সম্ভব নয় এবং সেটি প্রমানিত হয়েছে আবারও।

যেই উপজেলা নির্বাচন ৫ ভাগে হয়েছে সেই উপজেলা নির্বাচনে সেটি প্রমানিত হয়েছে। এই যে মাত্র সেদিন সিটি কপোরেশন নির্বাচন ঢাকা এবং চট্রগ্রামে হয়ে গেলো। সেই সিটি কপোরেশন নির্বাচন কি ভাবে পরিচালিত হয়েছে? এই নির্বাচন কমিশনের আন্ডারে এবং কিভাবে এই অবৈধ শেখ হাসিনা সরকার কিভাবে নির্বাচনকে একটি তামাসার নির্বাচনে পরিনত করেছে তা আবারও প্রমানিত করেছে।

 

তিনি আরও বলেন, আমাদের চলমান আন্দোলনের মাধ্যমে এবং নির্বাচনে অংশ গ্রহণ সব কিছু ও সকল কৌশলের মাধ্যমে আমরা দেশ বাসীর কাছে প্রমান করতে সক্ষম হয়েছি যে, একটি অরাজনৈতিক নিরপেক্ষ সরকারের অধীনেই একমাত্র একটি সচ্ছ নির্বাচন আশা করা সম্ভব। একই ভাবে আমরা সমগ্র বিশ্ববাসীকে যারা গনতন্ত্রকে প্রেকটিস করে সেই সকল দেশকে আমরা সুন্দর ভাবে পরিকার ভাবে বুঝাতে সক্ষম হয়েছি যে, শেখ হাসিনা একটি অবৈধ সরকার এবং এই অবৈধ সরকারের অধীনে কোন ভাবেই সচ্ছ নিরপেক্ষ নির্বাচন হতে পারে না।

 

তিনি আরও বলেন, এর আগেও আমরা ৮২ থেকে ৯০ পর্যন্ত যখন স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করেছিলাম। সে সময় আমাদের আমাদের অনেক নেতা কর্মী শহীদ হয়েছিলেন। অনেক নেতা কর্মী নির্যাতিত হয়েছিলেন।

কিন্তু ফাইনালি দেশের জনগণ যা চেয়েছিলো সেটি অর্জন করা সম্ভব হয়েছিলো। ঠিক আজও আমাদের বহু নেতা কর্মী নির্যাতিত হয়েছে। বহু নেতা কর্মী শারীরিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এর মধ্যে আমাদের অনেক নেতা কর্মী শহীদ হয়েছেন। ১ লক্ষ ২৬ হাজারের মতো আমাদের নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। ৫৭ হাজারের মতো আমাদের নেতা কর্মী জেলে বন্দি হয়ে আছে।

 

তিনি আরও বলেন, এতো অত্যাচার নির্যাতন তারা কেন চালাচ্ছে ? তারা এই জন্য চালাচ্ছে তাদের দলগত রাজনৈতিক ভাবে যে রাজনৈতিক ভিত্তি সেটি ক্রমশই দূর্বল হয়ে যাচ্ছে। এই দূর্বলতাকে ঢাকার জন্য তারা আমাদের নেতা কর্মীদের উপর, বর্তমানে শুধু নেতা কর্মীদের উপরই নয় ২০ দলীয় জোটের নেতা কর্মীদের উপরই নয় তারা এখন সাধারণ মানুষের উপর নির্যাতন চালাচ্ছে।

 

তিনি আরও বলেন, এই যে কিছু দিন আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বৈশাখী মেলা হলো । সেই বৈশাখী মেলায় জগন্য ন্যাক্করজনক কিছু ঘটনা ঘটেছে। দৈনন্দিন প্রতিদিনই কোন না কোন ঘটনা ঘটেছে। আর এই ঘটনার সাথে, প্রত্যেকটি যটনার সাথে তাদের দলের আওয়ামী লীগের কোন না কোন সংগঠন বা মূলদলের নেতা কর্মীরা এর সাথে জড়িত, এবং তাদের সাথে প্রশাসনের কিছু লোকজন জড়িত।

 

এই কাজ গুলো তারা কেন করছে? এই কাজ গুলো তারা করছে এই জন্য নিজেদের ভিত্তি যত দৃর্বল হবে তারা এসব করে মানুষকে ধমিয়ে ভয় দেখিয়ে, প্রতিপক্ষের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে ভয় দেখিয়ে দমিয়ে রাখার চেষ্ঠা করছে।

 

কিন্তু রাডারে তা উল্টা প্রমানিত হচ্ছে। প্রতিদিনই তাদের রাজনৈতিক ভিত্তি বা জনসমর্থন সংকুচিত হচ্ছে । কোন ভাবেই তা প্রসারিত হচ্ছে না। তাদের পড়ে যাওয়াটা বা ধসে যাওয়াটা এখন সময়ের ব্যাপারে প্রমানিত হয়েছে।

 

https://www.facebook.com/prothomnewsnewspaper” 

(পরবর্তী পর্ব চলবে …………)

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  • সর্বশেষ
  • সবচেয়ে পঠিত

জনমত জরিপ

অং সাং সু চির নোভেল পুরুষ্কার প্রত্যাহার করার জন্য আপনারা কি একমত ?

View Results

Loading ... Loading ...
ব্রেকিং নিউজ