বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমাবেশস্থলের বাইরে ৩য় দিনে ইউকে বিএনপির বিশাল বিক্ষোভ সমাবেশ’

জুন ১৫, ২০১৫ 207 views 0

প্রথম নিউজ প্রতিনিধি, লন্ডন : লন্ডনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মানে সংবর্ধনা দিয়েছে ইউকে আওয়ামী লীগ। সেন্ট্রাল লন্ডনের পার্ক লেইন হোটেলে রোববার লন্ডন সময় সন্ধ্যা ৬টার দিকে যখন প্রধানমন্ত্রীর সংবর্ধনা সভা চলছিল তখন সভাস্থলের বাইরে বিক্ষোভ প্রদর্শন করছিল বিএনপির নেতাকর্মীসহ সহস্রাধিক প্রবাসী জনগণ। ছয়দিন ব্যাপী বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশের তৃতীয় দিনে লন্ডনে পার্কলেন হোটেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মানে আয়োজিত নৈশভোজ ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে বিশাল বিক্ষোভ করে।

 

রবিবার (১৪ জুন) সেন্ট্রাল লন্ডনে পার্ক লেন হোটেলের সামনে দুপুর ৩টা থেকে সন্ধ্যা ৮ টা পর্যন্ত যুক্তরাজ্য বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের প্রায় সহস্রাধিক নেতাকর্মী অবস্থান করে। নানা দাবি সম্বলিত ব্যানার, প্ল্যাকার্ড ফেস্টুন নিয়ে ও মাথায় কালো কাপড় বেঁধে বিএনপি, যুবদল, জাসাস, স্বেচ্ছাসেবক দল, তরুণ দল ও মহিলা দলের নেতাকর্মীরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লন্ডন সফরের প্রতিবাদ জানায়।

 

এ সময় নেতাকর্মীরা ডাউন ডাউন শেখ হাসিনা, শেইম শেইম শেখ হাসিনা, হাসিনা মাস্ট গো, কিলার হাসিনা গো এ ওয়ে, ইত্যাদি নানা দাবি সম্বলিত ব্যানার নিয়ে জ্বালোরে জ্বালো আগুন জ্বালো, একশান একশান ডাইরেক্ট একশন ইত্যাদি নানা শ্লোগান দেয়।

ukkkk

যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব এম এ মালেক ও সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তারা বিরোধী দল ও মতের নেতাকর্মীদের ওপর অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারী শেখ হাসিনার বিভিন্ন বাহিনীর নির্যাতন ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের তীব্র নিন্দা জানান।

যুক্তরাজ্য বিএনপির তীব্র প্রতিরোধের মুখে শেখ হাসিনা সামন দিয়ে প্রবেশ করতে না পেরে পিছনের রাস্থায় হোটেলে প্রবেশের চেষ্টা করেন। কিন্তু ওৎ পেতে থাকা কিছু স্বেচ্ছাসেবক ও তরুণ দলের নেতা কর্মীরা হাসিনাকে দাওয়া করে এবং ছেড়া জুতা আর পচা ডিম শেখ হাসিনার গাড়ি লক্ষ করে নিক্ষেপ করতে থাকে।

uk-22

এতে শেখ হাসিনা বিরক্ত হয়ে অসব্য বলে গালি দিতে শুনা গেছে বলে সেচ্ছাসেবক দলের আমাদের প্রতিনিধিকে জানিয়েছেন। এদিকে শেখ হাসিনার প্রতিরোধ ঠেকাতে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা হোটেল থেকে বের হলে বিএনপি নেতাকর্মীরা ধাওয়া করে। পচা ডিম ও টমেটো নিক্ষেপ করে ধর ধর বলে ধাওয়া করলে (দৌড় দিয়ে) পালিয়ে যায় হোটেলের ভিতর । এতে অনেক যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীকে ডিমে সিক্ত হতে দেখা গেছে।

 

সমাবেশে যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব এম এ মালেক বলেন, ৫ জানুয়ারীর অবৈধ নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করে অবৈধ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশে গণতন্ত্রের কবর রচনা করেছেন। ভোটারবিহীন এ নির্বাচনে জনগণের আশা আকাঙ্খার প্রতিফলন ঘটেনি। বৃটেন, আমেরিকা ও ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে এই নির্বাচন গ্রহণযোগ্যতা পায়নি। তাই গণতন্ত্রের সুতিকাগার ব্রিটেনের মাটিতে আমরা অবৈধ প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে পারি না। শেখ হাসিনা ব্রিটেনের যেখানেই যাবেন সেখানেই তাকে প্রতিহত করা হবে।

uks

শেখ হাসিনাকে জালিম সরকার আখ্যা দিয়ে এম এ মালেক বলেন, ক্ষমতা দখলের পর থেকে এই ফ্যাসিষ্ট সরকার বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের হত্যা, গুম ও নির্যাতনের যে স্টীম রোলার চালাচ্ছেন তা ১৯৭১ সালের পাক বাহিনীর বর্বরতাকেও হার মানায়। অত্যাচার ও নির্যাতন চালিয়ে কোন সরকারই টিকে থাকতে পারেনি আর শেখ হাসিনাও পারবেন না। বাংলাদেশের জনগণ তাকে টেনে হিঁচড়ে ক্ষমতা থেকে নামাবে।

সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদ বলেন, রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসে বাংলাদেশের মানুষ আজ দিশেহারা। গুম, খুন আর বিচার বর্হিভূত হত্যাকান্ড যেন নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার। মানুষের স্বাভাবিক মৃত্যুর কোন গ্যারান্টি নেই। শেখ হাসিনার সরকার মানুষের ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়ে মানুষের ওপর জগদ্দল পাথরের মতো চেপে বসে আছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব ও গণতান্ত্রিক চেতনাবিরোধী শেখ হাসিনার হাতে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব মোটেও নিরাপদ নয়। তাই গণতান্ত্রিক মূল্যবোধবিরোধী শেখ হাসিনাকে গণতন্ত্রের সুতিকাগার ব্রিটেনে বাংলাদেশের গণতন্ত্রকামী মানুষ স্বাগত জানাতে পারে না। শেখ হাসিনা যেখানেই যাবেন তাকে সেখানেই প্রতিহত করা হবে। ৫ জানুয়ারীর একটি ভোটারবিহীন প্রহসনের নির্বাচনের মাধ্যমে শেখ হাসিনা ক্ষমতা দখল করেছেন যা বৃটেন, আমেরিকা ও ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে গ্রহণযোগ্যতা পায়নি। তিনি অবৈধ প্রধানমন্ত্রী।

বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাহিদুর রহমান, যুক্তরাজ্য বিএনপির প্রধান উপদেষ্টা শায়েস্তা চৌধুরী কুদ্দুছ, ব্যারিষ্টার এম এ সালাম, যুক্তরাজ্য বিএনপির সাবেক সিনিয়র সহসভাপতি আব্দুল হামিদ চৌধূরী, সাবেক সহসভাপতি আবুল কালাম আজাদ, তৈমুছ আলী, আখতার হোসেন, শাহ আখতার হোসেন টুটল, মুজিবুর রহমান মুজিব, মঞ্জুরুস সামাদ চৌধুরী, মোঃ আনা মিয়া, গোলাম রাব্বানী, শরীফ উদ্দিন, শরীফুজ্জামান চৌধুরী তপন, ডাঃ আব্দুল আজিজ, ফ্রান্স বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি হাজী হাবিব, শেখ শামসুদ্দিন শামীম, হেলাল উদ্দিন, যুক্তরাজ্য বিএনপির সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাসিম আহমেদ চৌধুরী, শহীদুল ইসলাম মামুন, ফেরদৌস আলম, শামসুর রহমান মাহতাব, আব্দুল করিম, নাসিম হেলালুজ্জামান, এম এস আহমেদ আজাদ, এডভোকেট তাহির রায়হান চৌধুরী পাবেল, তাজ উদ্দিন, করিম উদ্দিন, ব্যারিষ্টার হামিদুল হক আফিন্দি লিটন, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জসিম উদ্দিন সেলিম, ড. মুজিবুর রহমান, হাবিবুর রহমান ময়না, আবেদ রাজা, কামাল উদ্দিন, আব্দুস শহীদ, জাসাসের যথাক্রমে- জাসাস সভাপতি এম,এ সালাম, সেক্রেটারি ইকবাল হুসাইন, যুগ্ম সম্পাদক আসিফ চৌধুরী শিমুল, সাংগঠনিক সম্পাদক অঞ্জনা আলম, ইষ্ট জাসাসের সভাপতি আব্দুল মুতালিব লিটন, জাসাস নেতা রাশেল চৌধুরী, আরিফ আল মাহফুজ, আসিফ আহমেদ, আনোয়ার ইসলাম, তাসফিক চৌধুরী, আতিক আহমেদ, হেলাল আহমেদ, লুনা সাবেরিয়া, সুমি, তাসলিমা নাসরিন, বহ্নি, স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক নাসির আহমেদ শাহীন, সদস্য সচিব আব্দুল হোসেন, আসাদুজ্জামান আক্তার, প্রফেসর ড. সাইফুল আলম চৌধুরী,খসরুজ্জামান খসরু, এনামুল হক, রাইয়ান উদ্দিন, শেখ আলী আহমেদ, মোঃ নুর বক্স, মিছবাহুজ্জামান সোহেল, মঞ্জুর আশরাফ খান, হেভেন খান, এস এম লিটন, ইঞ্জিনিয়ার আলা উদ্দিন, সুমন আহমেদ, আব্দুল সেলিম চৌধুরী নিয়াজ মোঃ লিংকন, শহীদ মুসা, আবুল হাসনাত রিপন, আবুল গাফফার, আশরাফুল ইসলাম হিরা, যুবদল কেন্দ্রীয় সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক এনামুল হক লিটন, যুবদলের আহ্বায়ক দেওয়ান মোকাদ্দেম হোসেন নিয়াজ, আব্দুল বাছিত বাদশা,কামাল চৌধুরী, শাহরিয়ার রহমান জুনেদ, শের এ সাত্তার,রহিম উদ্দিন, টিপু আহমেদ, আফজল হোসেন, সাব্বির আহমেদ ময়না, মোঃ খিজির, ওয়াসিম উদ্দিন মানিক, এ জে লিমন, বাবর চৌধুরী, রাসেল আলী, হাবিবুর রহমান হাবিব, নুরুল আলী রিপন, শরীফ মোঃ করিম, স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য আবুল হাসনাত রিপন, সোলায়মান খান, জুনেদ আহমেদ, চৌধুরী আকমল হোসেন, জিয়াউর রহমান, জাহাঙ্গীর আলম শিমু, মিছবা এস চৌধুরী, রুবেল আহমেদ, আতাউর রহমান, হেলাল আহমেদ, আব্দুল গফফার, সেলিম আহমেদ সাজন, ইউসুফ আহমেদ, আবুল কালাম, মাহবুব আহমেদ, জাসাস নেতা কামরুল ইসলাম, ছাত্রদল নেতা আবু নাসের শেখ, মাসুদুর রহমান. সফিউল আলম মুরাদ, সাইফুল ইসলাম মিরাজ,  মোহাম্মদ সামছু মিয়া,মিলহানুর রহমান নমি, পোস্টমাউথ বিএনপির আহবায়ক এম এ হক, সদস্য সচিব সুমেল চৌধুরী,মেহদী হাসান ছোটন,এমাদুর রহমান এমাদ, নাজমুল হোসেন চৌধুরী, লুটন বিএনপির আহবায়ক আব্দুল হাই, সদস্য সচিব মঞ্জুর আহমেদ শাহনাজ, হাজী এমদাদুল হক, বিএনপি নেতা মোতাহের হোসেন লিটন,  বেডফোর্ড বিএনপির আহবায়ক ময়না মিয়া, সদস্য সচিব রাজু মিয়া, বিএনপি নেতা তারু মিয়া, এম এ রউফ, মানচেষ্টার বিএনপির সভাপতি কামাল আহমেদ, সেক্রেটারী লিটন চৌধুরী, গ্রেটার সাসেক্স বিএনপির সভাপতি আব্দুল মুকিত, সাউথাম্পটন বিএনপি নেতা মুনসুর রহমান শাহি, আব্দুর বাকি সিদ্দিকী, রচডেল বিএনপি নেতা জয়নাল আবেদীন, মইনুদ্দিন, ইউনুস খান, বশির আহমদ, সৈয়দ মিজান, লীডস বিএনপির সভাপতি জাহেদ আলী, মল্লিক হাসনু মিয়া, ব্রাডফোর্ড বিএনপির আহবায়ক আলহাজ্ব নাসিম রেজা, সদস্য সচিব সমসু মিয়া, নর্থ ইস্ট বিএনপি নেতা শাহান আহমেদ, আহসানুজ্জামান আরিফ, সাসেক্স বিএনপির সদস্য সচিব গোলাম রব্বানী, বিএনপি নেতা তফাজ্জল মিয়া, সাউথ ইস্ট বিএনপির সদস্য সচিব মকসুদ আলী জাকারিয়া,  এনফিল্ড বিএনপির সভাপতি হেলাল উদ্দিন, বিএনপি নেতা সায়েদ আহমেদ চৌধুরী, সিরাজ মিয়া, আব্দুল আহাদ, ফজলুল মিয়া, দেলোয়ার হোসেন আহাদ, এনামুল হক, রাইয়ান উদ্দিন, শেখ আলী আহমেদ, মোঃ নুর বক্স, মিছবাহুজ্জামান সোহেল, জাকির হোসেন কাবেরী, আহমেদ চৌধুরী মনি, মঞ্জুর আশরাফ খান, হেভেন খান, এস এম লিটন, ইঞ্জিনিয়ার আলা উদ্দিন, সুমন আহমেদ, আব্দুল সেলিম, চৌধুরী নিয়াজ মোঃ লিংকন, শহীদ মুসা, আসহাব আলী,  আবুল হাসনাত রিপন, আবুল গাফফার, আশরাফুল ইসলাম হিরা, যুবদল কেন্দ্রীয় সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক এনামুল হক লিটন, আব্দুল বাছিত বাদশা, জুনেদ আহমদ, টিপু আহমেদ, আফজল হোসেন, সাব্বির আহমেদ ময়না, মোঃ খিজির, ওয়াসিম উদ্দিন মানিক, এ জে লিমন, বাবর চৌধুরী, আব্দুল হক রাজ, দেওয়ান আব্দুল বাসিত, রাসেলআলী, হাবিবুর রহমান হাবিব, সোয়ালেহিন করিম চৌধুরী,  জিয়াউল হক জিয়া, নুরুল আলী রিপন, শরীফ মোঃ করিম, আলকু মিয়া, শিবলী তালুকদার, সুমন আহমদ, আব্দুস শহিদ, স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য আবুল হাসনাত রিপন, সোলায়মান খান, জুনেদ আহমেদ, চৌধুরী আকমল হোসেন, জিয়াউর রহমান, জাহাঙ্গীর আলম শিমু, মিছবা এস চৌধুরী, রুবেল আহমেদ, আতাউর রহমান, হেলাল আহমেদ, আকমল হোসেন, এমদাদ হোসেন, আব্দুল গফফার, সেলিম আহমেদ সাজন, ইউসুফ আহমেদ, আবুল কালাম, মাহবুব আহমেদ, জাসাস নেতা কামরুল ইসলাম, খালেদ চৌধুরী, ফয়সল আহমেদ, কফিল হায়দার, আব্দুল গাফফার, শাহ আলম, জিয়াউল ইসলাম, নোমান খান, ছাত্রদল নেতা আবু নাসের শেখ, মাসুদুর রহমান, সফিউল আলম মুরাদ, সাইফুল ইসলাম  মিরাজ, ইমতিয়াজ আহমেদ তামিম, মিলহানুর রহমান নমি প্রমুখ।

uk-11

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জনমত জরিপ

অং সাং সু চির নোভেল পুরুষ্কার প্রত্যাহার করার জন্য আপনারা কি একমত ?

View Results

Loading ... Loading ...
ব্রেকিং নিউজ