রবিবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৭

খুলুর খুলুর কাশের বড়ি, পটাপট কাশের বড়ি

আগস্ট ২৯, ২০১৬ 310 views 0
খুলুর খুলুর কাশের বড়ি, পটাপট কাশের বড়ি

আবু হানিফ মোঃ বায়েজীদ, গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি : বহু বছর আগে থেকে এভাবেই নানা ছন্দে গাইবান্ধার বিভিন্ন হাট-বাজার ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে গিয়ে ‘খুলুর খুলুর কাশের বড়ি’ বিক্রি করে পরিবারের মুখে হাঁসি ফোটাচ্ছেন শহরের ধনার পাড়ার সোলাইমান আলী (৬০)। বাবা-মা, স্ত্রী আর দুই ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়েই তার সংসার।

 

‘খুলুর খুলুর কাশের বড়ি। পটাপট কাশের বড়ি। কোনো রোগ ভালো হবে না, খুলুর খুলুর কাশের বড়ি। একটা খেলে আর একটা খেতে ইচ্ছা করে, খেলেই মজা, খুলুর খুলুর কাশের বড়ি। এই লাগে কাশের বড়ি, খুলুর খুলুর কাশের বড়ি। একটি কাপড়ের ব্যাগ আর কয়েক পাতা খুলুর খুলুর কাশের বড়িই তার সম্বল। জীবনের প্রয়োজনে হেঁটেই ছুটে চলছেন জেলার এক উপজেলা থেকে আরেক উপজেলায়। সামান্য পুঁজির এই ছোট্ট ব্যবসাকে তিনি দেখছেন অন্যভাবে। তার কাছে বড়ি বিক্রির ব্যবসাটা শুধু ব্যবসাই না তার রুজি রোজগারের পথ। এই ছোট্ট ব্যবসাকেই আঁকড়ে ধরে চলছে তার ছয় সদস্যের একটি পরিবার।

 

তবে, এই খুলুর খুলুর কাশের বড়ির আসল নাম ‘সুরমা’। বড়িগুলো দেখতে অনেকটা বড় সাইজ ও ডিজাইনের। এছাড়া এ বড়ি লাল, হলুদ ও সবুজ রঙে পাওয়া যায় সোলাইমানের কাছে। দাম এক টাকা। বড়ি বিক্রির সময় সোলাইমানের সঙ্গে দেখা হয় জেলা শহরের হকার্স মার্কেটে।

 

তিনি জানান, সেই পাকিস্তান আমল থেকে এ ব্যবসা করছেন। পাকিস্তান আমলে এক আনায় বিক্রি হতো এক একটা বড়ি। এখন তা বিক্রি হচ্ছে এক টাকা। দিনে ৫/৬শ বড়ি বিক্রি করছেন তিনি। খরচ বাদে ৩/৪শ টাকা আয় হয় তার।

 

জেলা শহরের হকার্স মার্কেটের এক কাপড় ব্যবসায়ী বলেন, ‘সেই ছোট বেলা থেকেই আমরা তাকে চিনি। তখন থেকেই তিনি এই বড়ি বিক্রি করেন। এই বড়ি খেলে কোনো রোগ ভালো না হলেও খেতে সুস্বাদু।

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জনমত জরিপ

অং সাং সু চির নোভেল পুরুষ্কার প্রত্যাহার করার জন্য আপনারা কি একমত ?

View Results

Loading ... Loading ...
ব্রেকিং নিউজ