রবিবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৭

টানা বৃষ্টি আর উজানের ঢলে ডুবে গেছে লালমনিরহাট জেলা !!!

আগস্ট ১২, ২০১৭ 545 views 0
টানা বৃষ্টি আর উজানের ঢলে ডুবে গেছে লালমনিরহাট জেলা !!!

রংপুর ব্যুরো : এবার শুধু তিস্তা এলাকায় বন্যা না সমস্ত জেলা পানিতে ভাসছে টানা চার দিনের অতি বৃষ্টি ও ভারত থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের পানিতে ভাসছে লালমনিরহাট জেলার পাঁচটি উপজেলা, ভেঙ্গে পরেছে শিক্ষা ব্যবস্থা | জেলার প্রায় সমস্ত দিব্যালয়ে পানি দুকে পরেছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন জেলার দুটি পৌরসভা ও ৪৫টি ইউনিয়নের অর্ধশতাধিক এলাকার প্রায় দেড় লাখ মানুষ।

 

স্থানীয়রা জানান, শুকনা খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকট দেখা দিয়েছে এলাকায়। গবাদি পশু-পাখি নিরাপদে রাখার জায়গা নিয়েও বিপাকে পড়েছেন লোকজন।ভেঙ্গে পরেছে বিদ্যুত ব্যবস্থা |বুড়িমারী-লালমনিরহাট মহাসড়কের পাটিকাপাড়া স্থানে হুমকির মুখে

 

তিস্তা নদী বিপদসীমার ২৫ সেন্টিমিটার ধরলা ৩২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বন্যার পানি প্রবাহিত হচ্ছে। জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)-এর উপ-সহকারী প্রকৌশলী আমিনুর রশীদ নিশ্চিত করেন।

 

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় তিস্তা ব্যারাজে বিপদসীমার ২৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে পানিপ্রবাহ পরিমাপ করা হয়েছে। ব্যারাজ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সব গেট খুলে দেওয়ার কারনে সমস্ত উপজেলাবাসী পানি বন্দি স্কুল কলেজ রাস্তাঘাট ঘরবাড়ী স্থবির হয়ে পরেছে জনজীবন ।

 

প্রকৌশলী আমিনুর রশীদ আরও বলেন,‘পানি আরো বাড়তে পারে কত বাড়তে পারে তা আনুমানের বাইবে । ধরলার পানি বুড়িমারী স্থলবন্দর বুড়িমারী ইউনিয়নের অধিকাংশ এলাকা তলিয়ে গেছে এছাড়াও পাটগ্রাম উপজেলা শহর পানিতে ভাসছে স্কুল কলেজে পানি ঢুকে পরেছে ব্যাহত হচ্ছে পাঠদান।পানি বেয়ে স্কুল কলেজে আসার কারনে তাদের পায়ে ঘায়ের সৃষ্টি হয়েছে। হুমকির মুখে বুড়িমারী-লালমনিরহাট মহাসড় উপজেলার পাটিকাপাড়া নামক স্থানে।

 

গত চারদিনের টানা বৃষ্টিপাতে তিস্তা, ধরলা, সানিয়াজানসহ সকল নদ-নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় লালমনিরহাটের দুটি পৌরসভা সহ ৫০টি ইউনিয়নের এলাকার প্রায় সব মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। ফলে এসব এলাকায় লোকজনের স্বাভাবিক জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। সবচেয়ে বেশি কষ্টে পড়েছেন শিশুরা। জেলার অধিকাংশ এলাকায় পুকুরের মাছ পানিতে ভেসে গেছে ১০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জেলা মৎস অফিস সুত্রে জানা গেছে।

 

হাতীবান্ধা উপজেলার নির্বাহী অফিসার এনামুল কবির জানানঅ অতি বৃষ্টির কারণে ভয়াবহ বন্যা দেখা দিয়েছে। চারদিকে পানি আর পানি। লোকজন ও পশুপাখি মারাত্মক কষ্টে পড়েছে।এবং উপজেলা সদর সহ প্রায় প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পানি বন্দি হয়ে পরেছে |আমারা উপজেলা প্রশাসন থেকে উর্ধতন কর্তিপক্ষকে রিপোর্ট পাঠিয়েছি এবং সবদিক দিয়ে নজর রাখছি।

 

জেলা প্রশাসক সফিউল আরিফ বলেন, ‘সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং ইউনিয়ন পরিষদের জনপ্রতিনিধিদের বন্যা কবলিত এলাকায় পাঠানো হয়েছে। ত্রাণ বিতরণের প্রস্তুতি চলছে। তবে তিস্তা বিধৌত এলাকার বন্যা কবলিত লোকজনকে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। তিনি বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করছেন |

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জনমত জরিপ

অং সাং সু চির নোভেল পুরুষ্কার প্রত্যাহার করার জন্য আপনারা কি একমত ?

View Results

Loading ... Loading ...
ব্রেকিং নিউজ